জেলা আওয়ামীলীগের কাছে মাথিউরা ইউপি চেয়ারম্যানের আবেদন নিয়ে তোলপাড়

  • আপডেট টাইম : নভেম্বর ১৬ ২০২১, ১১:১২
  • 38 বার পঠিত
জেলা আওয়ামীলীগের কাছে মাথিউরা ইউপি চেয়ারম্যানের আবেদন নিয়ে তোলপাড়

স্টাফ রিপোর্টার:

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে উপলক্ষ করে বিয়ানীবাজারে নৌকার প্রার্থী বাছাই নিয়ে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে। রবিবার বিকেল থেকে সম্ভাব্য নৌকার প্রার্থীরা এ প্রক্রিয়া প্রশ্নবিদ্ধ এবং কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের প্রতি সাংঘর্ষিক বলে অভিযোগ তোলেন। সোমবার এ নিয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে সিলেটের জনপ্রিয় পত্রিকা আগামী প্রজন্ম’র ওয়েব পোর্টাল। গণমাধ্যমে এমন প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নড়েচড়ে বসেন।

এদিনই সিলেট জেলা, বিয়ানীবাজার উপজেলা ও ই্উনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কাছে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করতে লিখিত আবেদন করেন মাথিউরার বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শিহাব উদ্দিন। তিনি গত দুইবারের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক।

আবেদনে শিহাব উদ্দিন নির্বাচন করবেননা মর্মে কেন্দ্রে তার নাম না পাঠাতে সংশ্লিষ্টদের কাছে অনুরোধ করেন। তৃণমূলে প্রার্থী বাছাইয়ের ২৪ঘন্টা পেরোনোর পূর্বে টানা দুইবারের বর্তমান চেয়ারম্যানের এমন আবেদনে তোলপাড় চলছে। মোহাম্মদ শিহাব উদ্দিন এ ধরণের আবেদন প্রেরণ করা হয়েছে মর্মে স্বীকার করে বিস্তারিত কিছু জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। যদিও এটা তার নির্বাচনী কৌশল বলে মনে করছেন নেটিজেনরা।

সূত্র জানায়, বিয়ানীবাজারের ১০টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রত্যাশী আরো একাধিক প্রার্থী তৃণমুলের ভোটে অসেন্তাষ জানিয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

জানা যায়, ১০টি ইউনিয়নে প্রশ্নবিদ্ধ প্রার্থী বাছাইয়ে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড নাখোশ হওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রার্থী বদল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একাধিক ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থীরা নির্বাচন করতেও আটঘাঁট বাঁধছেন। বিশেষ করে নৌকা যারা পেতে চান, তারা ছুটছেন ঢাকায় লবিং করতে। তৃণমূলের ভোটে অনিয়ম তুলে ধরে কেউ আবার লিখিত অভিযোগও দিচ্ছেন। বিএনপির ওয়ার্ড পর্যায়ের সাবেক নেতা, যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্যসহ একাধিক বিতর্কিত ব্যক্তি তৃণমূলের ভোটে এগিয়ে আছেন। তাদের বিষয়েও তথ্য নিচ্ছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা।

একটি সূত্র জানায়, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগ থেকে এখানকার ১০টি ইউনিয়নে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নামের তালিকা সোমবার ঢাকায় প্রেরণ করা হবে। এই তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের আমলনামা গোয়েন্দা সংস্থা দ্বারা তদন্তশেষে চূড়ান্ত প্রার্থী মনোনয়ন দেবে আওয়ামীলীগ।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন জানান, তুণমূলরে ভোট শেষ কথা নয়। নেত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত মনোনয়ন বোর্ডই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবে। আহমদ হোসেন আরো বলেন, বিতর্কিত কেউ তৃণমূলের ভোটে এগিয়ে থাকলে স্থানীয়দের পক্ষ থেকে অভিযোগ প্রেরণ করা হোক। আমরা সেটা খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নিব।

সংবাদটি শেয়ার করুন
এই ক্যাটাগরীর আরো খবর