নতুন স্বপ্ন নিয়ে ১৮ মাস পর স্কুলে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস করতে হয়েছে গাছ তলায়

  • আপডেট টাইম : সেপ্টেম্বর ১৪ ২০২১, ১৫:১৪
  • 18 বার পঠিত
নতুন স্বপ্ন নিয়ে ১৮ মাস পর স্কুলে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের  ক্লাস করতে হয়েছে গাছ তলায়

তাহিরপুর প্রতিনিধিঃ

বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ (করোনাভাইরাস) এর কারণে আবারও সরকারি নির্দেশনায় দীর্ঘ ১৮ মাস পর গতকাল রবিবার সারা দেশব্যাপী স্কুল কলেজ খোলার পর তাহিরপুরে ছাত্র-ছাত্রীরা মনে নতুন স্বপ্ন আর আনন্দের সাথে স্কুলে গিয়ে স্কুলের ভবন না থাকায় ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস করতে হয়েছে গাছ তলায় বসে। জানাযায়, সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন করে ভবন নির্মাণের জন্য বিগত ৫ মাস পূর্বে পুরাতন ভবনটি ভেঙে ফেলেন। তাই স্কুলের ভবন না থাকায় ছাত্র ছাত্রীদের গাছের তলায় বসিয়ে পাঠদান করাতে হচ্ছে শিক্ষকদের। তবে দীর্ঘদিন পর স্কুল খোললেও স্কুল ভবন না থাকায় শ্রীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা মনে যে আনন্দ নিয়ে স্কুলে আসছিল গাছ তলায় বসে পাঠদান করার পর অনেকটা সেই আনন্দ ম্লান হয়ে যায়। যার ফলে ওই কোমলমতি ছাত্রছাত্রীদের বাড়ি ফিরতে হয়েছে নিরানন্দ হয়ে।

শ্রীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিগত প্রায় ৫ মাস পূর্বে বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবন ভেঙে ফেলে নতুন ভবন নির্মাণের জন্য । কিন্তু আজ পর্যন্ত নতুন ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেনি ঠিকাদার। জানিনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি কেন তার ভবন নির্মাণে কাজ শুরু করছেন না। তাই ভবন না থাকায় ছাত্র ছাত্রীদের গাছের নিচে বসিয়েই পাঠদান করতে হয়েছে।

বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী রিয়া মনি জানায়, লাইজ্জের বাদে ( অনেকদিন পরে) খাসিতে সবার সাথে স্কুলে গিয়ে দেখি স্কুল ভাঙা। পরে স্যারেরা (শিক্ষকগণ) আমরারে (আমাদের) স্কুলের গাছের নিচে ব্র‍্যাঞ্চ বসিয়ে পড়াইছেন।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি তৌহিদ হাসান বলেন, স্কুলের নতুন ভবনের কাজ শুরু করার জন্য ঠিকাদারের সাথে অনেক বার যোগাযোগ করেছি কিন্তু ঠিকাদার কি কারনে আজ পর্যন্ত নতুন ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেনি আমাদের জানা নেই!

ছাত্র অভিবাবক কামরুল হাসান বলেন, ঠিকাদার বিভিন্ন অযুহাত দেখিয়ে ৫ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত নতুন ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেনি। পরে আমরা বিষয়টি শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: রায়হান কবির বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলে খুব শীগ্রই বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর