বিয়ানীবাজার সীমান্তে চামড়া পাচার রোধে বিজিবি’র সতর্কতা

  • আপডেট টাইম : আগস্ট ০৩ ২০২০, ১০:৪০
  • 47 বার পঠিত
বিয়ানীবাজার সীমান্তে চামড়া পাচার রোধে বিজিবি’র সতর্কতা

বিয়ানীবাজার উপজেলা প্রতিনিধি :

ভারতে চামড়া পাচাররোধে বিয়ানীবাজার সীমান্তে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। নজরদারিতে আনা হয়েছে ৫২-ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ পুরো সীমান্ত এলাকা। ওই এলাকায় বিজিবির টহল ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

এবছর ঢাকার বাইরে চামড়ার দাম বর্গফুট প্রতি ২৮ থেকে ৩২ টাকা। অপরদিকে ছাগলের চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩ -১৫ টাকা প্রতি বর্গফুট। গতবছর চামড়ার দাম আরো বেশি ছিল। ভারতে চামড়ার দাম বরাবরই বেশি। সেই কারণে সীমান্ত পথে চামড়া পাচারের প্রবণতা রয়েছে।

এবার ঈদে চামড়ার দাম নেই বললেই চলে এক একটি চামড়া ২০/৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। অনেকে সড়কে ফেলে চলে গেছে। এ সুযোগে একটি মহল চামড়া সংগ্রহ করে লবন দিয়ে মজুদ করে রেখেছে। সময় সুযোগ পেলে তা ভারতে পাচার করার চেষ্টা করবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দেশের সব সীমান্তে চামড়া পাচার রোধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে। এর আলোকে সকল সীমান্ত এলাকায় তৎপর রয়েছে বিজিবি।

সূত্র জানায়, খুচরা ও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা নির্ধারিত দামের চেয়ে আরো কম দামে চামড়া কিনে মজুদ করে রাখছেন। তারা স্থানীয় বাজারে চামড়া না তুলে নিজস্ব কায়দায় তা সংরক্ষণ করছেন। দেশের বাজারে দাম কম হওয়ায় এই চামড়া বাংলাদেশে রাখা সম্ভব হবে কি না তা নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে সংশয় রয়েছে।

চামড়া ব্যবসায়ীদের মতে, ভারতের চেয়ে বাংলাদেশের পশুর চামড়ার গুণগত মান উন্নত। প্রতিবেশী দেশের পশুর চামড়া তুলনামূলক নিম্নমানের হওয়ায় এদেশীয় চামড়ার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে ভারতে। চোরাকারবারিরা প্রতিবেশী দেশে চামড়া পাচার করে ওই অর্থ দিয়ে ভারত থেকে অন্যান্য মালামাল কিনে আনার চেষ্টায় থাকে। কোরবানি ঈদের সময় পশুর চামড়ার দাম বাস্তব সম্মতভাবে নির্ধারণ করা হলে পাচারের প্রবণতা কমে। পাশাপাশি স্বস্তিতে থাকেন ব্যবসায়ীরাও।

বিয়ানীবাজারের লাসাইতলাস্থ বিজিবি-৫২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল গাজী শহিদুল্লাহ বলেন, সীমান্ত দিয়ে ভারতে চামড়া পাচার রোধে বিজিবিকে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে। বিভিন্ন সীমান্ত পয়েন্টে বিজিবি পোস্টে কড়া নজরদারি রয়েছে। বিশেষ করে রাতে টহল ব্যবস্থা আরো জোরদার করা হয়েছে। যাতে কেউ অবৈধভাবে ভারতে চামড়া পাচার করতে না পারে সেজন্য ঝুঁকিপূর্ণ সীমান্তগুলো চিহ্নিত করে টহল ব্যবস্থা আরো জোরদার করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই আদেশ বলবত থাকবে বলে জানান তিনি।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর